অনার্স ১ম বর্ষের শিক্ষার্থীদের বিসিএস প্রস্তুতি !

প্রতিবছর প্রায় ২ লাখের বেশি গ্র্যাজুয়েট হয়ে বের হচ্ছে। চোখে মুখে বড় স্বপ্ন। বাবা মায়ের স্বপ্ন পূরণ করার সময় এসেছে। বাবা-মাও বুক ভরা আশা নিয়ে বসে আছেন ছেলে-মেয়ে দেশ সেরা কর্মকর্তা হবেন। কিন্তু বাবা মায়ের স্বপ্ন সবাই কি পূরণ করতে পারছে ? বাস্তবতা হলো না। সবাই তাদের স্বপ্নগুলো কিছু যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও পূরণ করতে পারছে না । এই বিশাল সংখ্যক গ্রাজুয়েটদের জন্য পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান নেই দেশে। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান চাইলেই একসাথে সবার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিতে পারছে না ।

এই  প্রার্থীদের মধ্যে অল্প কিছু সংখ্যক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারেন । বাকি সবাই বেকারের তকমা লাগিয়ে বছরের-পর-বছর কর্মসংস্থানের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়ান। যারা চাকরি পান আর যারা চাকরি পান না তাদের মধ্যে পার্থক্যটা কোথায়? খুব বেশি পার্থক্য আমি দেখতে পাই না। তবে তাদের মধ্যে প্রস্তুতি নেওয়ার ধরণটা একটু ভিন্ন হয়ে থাকে। চাকরি প্রার্থীদের মধ্যে থেকে অনেকেই আমাকে প্রায়ই প্রশ্ন করে থাকেন কোথা থেকে শুরু করব কিভাবে শুরু করব? ব্যস্ততার কারণে সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হয়ে ওঠেনা।

আজকে আমি অনার্স প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের বিসিএস প্রস্তুতি নিয়ে কিছু কথা বলব। চাকরির বাজারে আসতে আসতে তাদের কি কি দক্ষতা থাকা প্রয়োজন । যে দক্ষতাগুলো থাকলে মাত্র ছয় মাসের প্রস্তুতিতে যে কোন চাকরি পেতে পারেন সেগুলো নিয়েই আজকের এই আলোচনা। পরবর্তীতে অন্য বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য লেখার চেষ্টা করব।  চলুন শুরু করা যাক।

অ্যাক্যাডেমিক পড়াশোনায় মনোযোগ দিন:

আগামী চার বছর একাডেমিক পড়াশোনায় পূর্ণ মনোযোগ দিতে হবে। অ্যাক্যাডেমিক জ্ঞান ছাড়া বিসিএসের চিন্তা করাও বোকামী। কারণ বিসিএস লিখিত ও ভাইভাতে অ্যাক্যাডেমিক জ্ঞানের যাচাই করা হয়। অ্যাক্যাডেমিক জ্ঞান সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা না থাকলে ভাইভা বোর্ডে অপমান অপমান করা হয়। তাই অবশ্যই অ্যাক্যাডেমিক এখন থেকেই সিরিয়াস হতে হবে। অ্যাক্যাডেমিক পড়াশোনা শেষ করার পরে পর্যাপ্ত সময় থাকলে নিচের কাজগুলো করুন।

যে কাজগুলো এখন থেকেই শুরু করতে হবে:
বেইসিক স্ট্রং করা:

পরীক্ষার সিলেবাস নতুন কোন সিলেবাস নয়। বিসিএস পরীক্ষাটা মূলত ক্লাস ওয়ান থেকে এইচএসসি পর্যন্ত যে পঠিত বিষয়গুলো ছিল সেই বিষয়গুলোর উপর পূর্ণাঙ্গ পরীক্ষা। অর্থাৎ এই বিষয়গুলো যদি আপনি আগে ভালোভাবে পড়ে থাকেন তাহলে আপনার যেকোন চাকরি পাওয়ার জন্য ছয় মাসের প্রস্তুতিই যথেষ্ট। আগে ফাঁকি দিয়ে থাকলে এখন অবশ্যই এই বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে অর্থাৎ স্পষ্ট ধারণা রাখতে হবে। চাকরি পেতে চাইলে এটা মাস্ট‌ করতেই হবে।

বেসিক স্ট্রং করার সাথে সাথে পর্যাপ্ত সময় পেলে যে কাজগুলো করবেন:

বাংলা সাহিত্যকর্ম:

বিসিএসে যে লেখকদের সাহিত্যকর্ম গুলো বারবার আসে। সেই সাহিত্যকর্মগুলো বিস্তারিত পড়বেন। অর্থাৎ বিখ্যাত কবিতা, উপন্যাস, ছোটগল্প গুলো আগামী চার বছর ধীরে ধীরে শেষ করবেন । এটা অবশ্যই একাডেমিক পড়াশোনা শেষ করে পড়বেন। আমার ধারণা চার বছরে যথেষ্ট সময় পাওয়া যাবে এগুলো পড়ার জন্য। আমি সময়ের ফাঁকে ফাঁকে এগুলো পড়েছিলাম। আমার বিশ্বাস আপনিও এই সময়টুকু পাবেন।

বাংলা ব্যাকরণ শিখুন:

শুধু নবম – দশম শ্রেণির মুনীর চৌধুরীর ব্যাকরণ বইটা মুখস্ত করে ফেলেন এই চার বছরে। আপাতত আর কিছু দরকার নেই।

ইংরেজি গ্রামার শিখুন:

শুধু এসএসসি বা এইচএসসির চৌধুরী অ্যান্ড হোসেন-এর ইংরেজি গ্রামার বই এর গ্রামার গুলো বুঝে বুঝে চর্চা করুন। কোন কিছু না বুঝলে বড় কারো সহায়তা নেন ‌‌। এটা শেষ করার পরে চাকরি রিলেটেড একটা বই কিনে প্র্যাকটিস করতে থাকুন। অন্য কিছুর দরকার নেই।

গণিত চর্চা করুন:

অনার্সে উঠতে উঠতে অনেকেই গণিত ভুলতে বসেছেন। তাই আবার শুরু করুন। এখন থেকে আগামী চার বছর শুধুমাত্র ক্লাস ৬ থেকে ৯ পর্যন্ত গণিতের যে বোর্ড বই গুলো আছে সেগুলো করতে থাকুন। আর কোন কিছু দরকার নেই। গণিতে দক্ষতা ভালো থাকলে চাকরি রিলেটেড যেকোনো একটা বই কিনে চর্চা করুন।

শুদ্ধ বাংলা বলতে শিখুন:

সুন্দরভাবে কথা বলতে পারাটাও একটা আর্ট। বলা হয়ে থাকে, শুধু কথা দিয়ে বিশ্ব জয় করা যায়। তাই শুদ্ধভাবে বাংলায় কথা বলতে শিখুন। সব জায়গায় এটা কাজে লাগবে।

ইংরেজি স্পোকেন শিখুন:

আমাদের দেশে এখনো কেউ একটু ভালোভাবে ইংরেজি বলতে পারলে তাকে আলাদাভাবে মূল্যায়ন করা হয়। অন্য কোনো যোগ্যতা না থাকলেও শুধুমাত্র ইংরেজিতে সুন্দরভাবে কথা বলার দক্ষতা থাকলে অন্যদের থেকে যোজন যোজন এগিয়ে থাকবেন। আগামী চার বছর পর আপনি যাতে ফ্লুয়েন্টলি ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন এবং এটা করার জন্য যা যা করা দরকার ঠিক তাই করুন। এর জন্য যথেষ্ট সময় দিন।

কাউকে কনভিন্সড করার দক্ষতা:

যেকোনো পরিবেশে এই দক্ষতা আপনাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে রাখবে । এটা ভাইভাতে খুব কাজে দেয়। অনেক চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান মালিক প্রায়ই বলেন, কোন প্রশ্নের উত্তর না পারলেও তার সঠিকভাবে উত্তর করা যায়। অর্থাৎ ভাইভা যিনি নিবেন তাকে কোনভাবে কনভিন্সড করতে পারলে আপনি নিশ্চিত চাকরি পাবেন। শুধু এই দক্ষতা কাজে লাগিয়ে অনেকেই চাকরি পেয়ে থাকেন। যারা সুন্দরভাবে কথা বলে তাদেরকে ফলো করুন।

ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং:

আপনি চাকরি পাবেন কি পাবেন না লিখিত পরীক্ষা দেওয়ার পরে তা বলে দেওয়া যায়। অর্থাৎ আপনার চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা লিখিত পরীক্ষার উপর নির্ভর করে। লিখিত পরীক্ষায় যে যত ভালো করতে পারবে তার চাকরি পরীক্ষার সম্ভাবনা তত বেশি। লিখিত পরীক্ষায় ভালো করতে হলে অবশ্যই আপনাকে ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এ ভালো হতে হবে। এটা বাংলা ও ইংরেজি উভয় ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। আর এর জন্য চাই দীর্ঘমেয়াদী প্রস্তুতি। আপনি যদি ভাবেন রাতারাতি আপনি ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এ ভালো হয়ে যাবেন তাহলে ভুল করছেন । আপনাকে এর জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে এবং যথেষ্ট সময় দিতে হবে। সারাদিন কি করলেন তা বাংলা ও ইংরেজিতে প্রতিদিন এক পৃষ্ঠা লিখে এই চর্চাটা শুরু করতে পারেন। একমাস পরে আকাশ-পাতাল পার্থক্য লক্ষ্য করবেন। সিরিয়াসলি।

নিয়মিত পত্রিকা পড়ুন:

নিয়মিত পত্রিকা পড়ার অভ্যাস করবেন। এতে করে আপনার ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এর মান বাড়বে। এছাড়া আপনি সারা বিশ্বের সাথে কানেক্টেড থাকবেন ।

কোন ধরনের সাধারণ জ্ঞানের বই পড়া নিষিদ্ধ:

অনার্স প্রথম বর্ষে পড়া অবস্থায় সাধারণ জ্ঞান পড়ার কোন দরকার নেই। কারণ আপনি যে সাধারণ জ্ঞান পড়ছেন আগামী চার বছর পর তার ২% ও কাজে লাগবে কিনা সন্দেহ আছে। সাধারণ জ্ঞান নিয়মিত পরিবর্তন হয়। আপাতত আগামী দুই বছর সাধারণ জ্ঞান পড়বেন না। আর চাকরির পরীক্ষায় যে ধরনের সাধারণ জ্ঞান  আসে তা তিন থেকে চার মাস পড়লেই কভার করা সম্ভব।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: আবার বলছি উপরের যে কাজগুলো আমি করতে বলেছি সেই কাজগুলো অবশ্যই আপনার একাডেমিক পড়াশোনা শেষ করে পর্যাপ্ত সময় পেলেই  করবেন। অন্যথায় দরকার নেই।

আজকে এই পর্যন্তই অন্য আরেকদিন আরও বিস্তারিতভাবে বলার চেষ্টা করব। আর কেউ কোন কিছু বুঝতে সমস্যা হলে অথবা জানার থাকলে কমেন্ট করুন আমি সেই বিষয় নিয়ে লেখার চেষ্টা করব।

মোঃ তাজ উদ্দিন।
ইউনেস্কো কমিশন (বর্তমান কর্মস্থল)
নরসিংদী সরকারি কলেজ (২৪ তম বিসিএস)
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ( ইংরেজি সাহিত্য )
এসএসসি অষ্টম স্টান্ড ( যশোর বোর্ড)
বরিশাল ক্যাডেট কলেজ।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটের কোনো কনটেন্ট অন্য কোন ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা দণ্ডনীয় অপরাধ। ইতিমধ্যে থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। কেউ এই ওয়েবসাইটের কনটেন্ট কপি করে নিজের নামে চালিয়ে দিলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on telegram
Telegram
Share on email
Email
Share on twitter
Twitter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Posts

Latest Jobs

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় !

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় ! ইসমাইল হোসেন সিরাজীর উপন্যাস মনে রাখার সহজ উপায়: রানুর ফিতা ১। রা – রায় নন্দিনী ২।

Read More »

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে ৭১ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে মোট ৯ টি পদে ৭১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদন শুরু-২৯ ডিসেম্বর

Read More »

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে ৩৮ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। আবেদন শুরু-১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০ টা থেকে। আবেদন শেষ- ৪ জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫ টা। আবেদন করতে

Read More »

শক্তির উৎস

শক্তির উৎস শক্তির প্রধান উৎস (prime sources of energy) সূর্যই প্রায় সকল শক্তির উৎস । এছাড়াও পরমাণুর অভ্যন্তরে নিউক্লিয়াসের নিউক্লিয় শক্তি ও  পৃথিবীর অভ্যন্তরে অবস্থিত উত্তপ্ত গলিত

Read More »

বিশ্বসভ্যতা (A 2 Z)। ২০০ MCQ

বিশ্বসভ্যতা পৃথিবী এ পর্যন্ত পাড়ি দিয়েছে চারটি বরফ যুগ ও চারটি আন্তঃবরফ যুগ। প্রতি যুগেই উষ্ণ অঞ্চলে গিয়ে টিকে থাকা প্রাণীদের দেহের আকৃতিতে কিছু পরিবর্তন

Read More »

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় !

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় ! ইসমাইল হোসেন সিরাজীর উপন্যাস মনে রাখার সহজ উপায়: রানুর ফিতা ১। রা – রায় নন্দিনী ২।

Read More »

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে ৭১ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে মোট ৯ টি পদে ৭১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদন শুরু-২৯ ডিসেম্বর

Read More »

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে ৩৮ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। আবেদন শুরু-১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০ টা থেকে। আবেদন শেষ- ৪ জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫ টা। আবেদন করতে

Read More »

শক্তির উৎস

শক্তির উৎস শক্তির প্রধান উৎস (prime sources of energy) সূর্যই প্রায় সকল শক্তির উৎস । এছাড়াও পরমাণুর অভ্যন্তরে নিউক্লিয়াসের নিউক্লিয় শক্তি ও  পৃথিবীর অভ্যন্তরে অবস্থিত উত্তপ্ত গলিত

Read More »

বিশ্বসভ্যতা (A 2 Z)। ২০০ MCQ

বিশ্বসভ্যতা পৃথিবী এ পর্যন্ত পাড়ি দিয়েছে চারটি বরফ যুগ ও চারটি আন্তঃবরফ যুগ। প্রতি যুগেই উষ্ণ অঞ্চলে গিয়ে টিকে থাকা প্রাণীদের দেহের আকৃতিতে কিছু পরিবর্তন

Read More »