বিসিএস টেকনিক্যাল ক্যাডারের সুবিধা ও অসুবিধা জেনে নিন !

দুই পর্বের প্রথম পর্বে জেনারেল ক্যাডারসমূহ নিয়ে লেখার পর আপনাদের ব্যাপক সাড়া পেয়ে টেকনিক্যাল ক্যাডারসমূহের পদায়ন, পদোন্নতি, নিয়মিত স্যালারির বাইরে বৈধ আর্থিক সুবিধা, সমস্যা ইত্যাদি নিয়ে সংক্ষেপে আলোচনা করলাম।

সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে চাকরি হলে আপনি সরকারি কলেজসমূহে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করবেন। যেখানেই পদায়ন পান না কেন সেখানকার মানুষের নির্মোহ সম্মান ও ভালোবাসা পাবেন। শিক্ষা বিষয়ে কোন নিয়োগ বা কাজে আপনাকে ডাকা হবে। আপনার গ্রহণযোগ্যতা থাকবে বেশ ভালো। কলেজে এইচ.এস.সি, অনার্স, মাস্টার্স, ডিগ্রি (পাস) কোর্সের ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াবেন। তবে শিক্ষা ক্যাডার মানে শুধু কলেজে শিক্ষকতা করাই না। আপনি দেশের সকল শিক্ষাবোর্ড, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি), জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমী (নায়েম), জাতীয় কারিকুলাম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি), আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট, ব্যানবেইস, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরসহ শিক্ষা সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও প্রোগ্রাম ও প্রকল্পে চাকরি করতে পারবেন। কলেজের অভ্যন্তরীণ, বোর্ড ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষায় ইনভিজিলেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন ও খাতা মূল্যায়ন করে আপনি গড়ে প্রতি মাসে দশ থেকে পনেরো হাজার টাকা পাবেন।

ইচ্ছা করলে প্রাইভেট টিউশন করেও অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কলেজে যেকোন কাজের জন্য কমিটি গঠিত হয়। বিভিন্ন কমিটি যেমনঃ ক্রয় কমিটি, টেন্ডার কমিটি, স্পোর্টস কমিটি, কালচারাল কমিটি, ভর্তি কমিটি, ফরম ফিলাপ কমিটি, পরীক্ষা কমিটি, বিভিন্ন জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটি ইত্যাদি কমিটির দায়িত্ব পালন করে আপনি আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবেন। অনার্স বা মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণি থাকলে যোগদানের সময়ই অন্যান্য ক্যাডারদের চেয়ে একটা ইনক্রিমেন্ট বেশি পাবেন। আগে এমফিল করলে দুইটা এবং পিএইচডি করলে তিনটা ইনক্রিমেন্ট দেওয়া হতো।

যদিও বর্তমানে সেটা বন্ধ আছে, তবে যেকোনো সময় খুলে যেতে পারে। দেশে ও দেশের বাইরে উচ্চশিক্ষা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ আছে। নিজেকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি সেখান থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ হয় ঢাকা কলেজের পাশে জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমিতে যা নায়েম নামে পরিচিত। কাজের চাপ কম। ঈদ, পূজা বা বিভিন্ন আনন্দ উৎসবে ছুটি নিয়ে ভাবতে হবে না। সহজেই ছুটি পাবেন। সময়টাকে নিজের মতো করে উপভোগ করতে পারবেন।

পদোন্নতি মোটামুটি। আশার কথা হলো পদ সৃষ্টি এবং কিছু ক্যাডার সিডিউলভূক্ত পদ উদ্ধারের কাজ চলছে। সৃষ্টি ও উদ্ধার হয়ে গেলে পদোন্নতি দ্রুত হবে আশা করা যায়। কলেজে থাকা অবস্থায় অন্যান্য ক্যাডারের মত ক্ষমতার প্রয়োগ করতে পারবেন না। লজিস্টিক সুবিধাও নাই বললেই চলে। তাছাড়া অবকাশ বিভাগের কর্মকর্তা হিসেবে পরিগণিত হওয়ায় পেনশনকালীন সময়ে কিছু আর্থিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন। তবে এই জটিলতা থেকে বের হয়ে আসার চেষ্টা চলছে।

কলেজে পদক্রম

প্রভাষক > সহকারী অধ্যাপক > সহযোগী অধ্যাপক > অধ্যাপক অধিদপ্তরে পদক্রমঃ শিক্ষা কর্মকর্তা > সহকারী পরিচালক > উপপরিচালক > পরিচালক > অতিরিক্ত মহাপরিচালক > মহাপরিচালক

কৃষি ক্যাডার

বিসিএস কৃষি ক্যাডারে চাকরি হলে আপনি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করবেন। সেখানে থেকে আপনাকে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসে পদায়ন দেওয়া হবে। উপজেলার কৃষকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান, সার বিতরণ, ফসলের নতুন জাতের প্রচলন, কীটনাশকের লাইসেন্স প্রদান, ফসলের রোগ-বালাই দমনের ব্যবস্থা, প্রযুক্তি বিষয়ক সহায়তা, মান সম্মত বীজ উৎপাদনে সহায়তা, কৃষি ঋণ প্রাপ্তিতে সহযোগিতা, কৃষি পণ্য বিপণনে সহায়তা, কৃষি পণ্যের মূল্য সংযোজনে সহযোগিতা, কৃষি পুনর্বাসনে সহায়তা, কৃষিতে ভর্তুকি ও উৎপাদনে সহায়তা, সেচ ব্যবস্থাপনা, প্রাকৃতিক দুর্যোগে করণীয় সম্পর্কে উপদেশ প্রদান ও বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনাসহ অন্যান্য কৃষি সম্প্রসারণ বিষয়ক কাজ করবেন।

পদোন্নতি মোটামুটি। কাজের চাপ আছে। ছুটি পাবেন কম। দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুবিধা আছে। আর প্রশিক্ষণ মানেই নিজেকে সমৃদ্ধ করা এবং বাড়তি কিছু আয়ের সুযোগ। কৃষি অফিস উপজেলা চত্বরের ভিতরেই হয় সাধারণত। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অনুপস্থিতিতে উপজেলা কৃষি অফিসারই উপজেলার মুরব্বি হিসেবে অবস্থান করেন।

পদক্রম

কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা > অতিরিক্ত কৃষি অফিসার > উপজেলা কৃষি অফিসার > অতিরিক্ত উপ-পরিচালক > উপ-পরিচালক > অতিরিক্ত পরিচালক > পরিচালক >

মহাপরিচালক মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইন্সটিটিউটের পদক্রমঃ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা > উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা > প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা > মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা > পরিচালক

মৎস্য ক্যাডার

বিসিএস মৎস্য ক্যাডারে নির্বাচিত হলে আপনি মৎস্য অধিদপ্তরে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা পদে যোগদান করবেন। তারপর আপনাকে দেশের যেকোন উপজেলায় পদায়ন করা হবে। উপজেলা অফিসের প্রধান হিসেবে থাকবেন। উন্নত মাছের জাত উদ্ভাবন, মাছের মড়ক দমন, মাছ চাষকে উৎসাহ প্রদান করা, মৎস্য চাষীদের কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান করার কাজ করবেন। মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিএফআরআই), জেলা মৎস্য কর্মকর্তা, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশন, সকল সরকারি মৎস্য খামারে কাজের সুযোগ আছে। কাজের চাপ কম। ছুটি পাবেন। প্রশিক্ষণও ভালোই পাবেন। ফলে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। পদোন্নতি মোটামুটি।

পদক্রম

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা > সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা > জেলা মৎস্য কর্মকর্তা > উপ-পরিচালক > পরিচালক > মহাপরিচালক

পশুসম্পদ ক্যাডার

বিসিএস পশুসম্পদ ক্যাডারে চাকরি হলে আপনি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে ভেটেরিনারি সার্জন বা সমমানের পদে যোগদান করবেন। সেখান থেকে আপনাকে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে পদায়ন করা হবে। উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ কার্যালয় ছাড়াও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউট, চিড়িয়াখানা ও বিভিন্ন সরকারি প্রজনন কেন্দ্র ও খামারে কাজ করার সুযোগ পাবেন। কাজের চাপ কম। ছুটি পাবেন। দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ আছে। বিভাগীয় প্রশিক্ষণ হয় সম্ভবত সাভারে অবস্থিত অফিসার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউটে। পদোন্নতি মোটামুটি।

পদক্রম

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা > জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা > অতিরিক্ত উপ-পরিচালক > উপ-পরিচালক > পরিচালক > মহাপরিচালক

পরিসংখ্যান ক্যাডার

বিসিএস পরিসংখ্যান ক্যাডারে নির্বাচিত হলে আপনি পরিসংখ্যান কর্মকর্তা হিসেবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর সদরদপ্তরে যোগদান করবেন। সেখান থেকে পদায়ন হয় জেলা, বিভাগ কিংবা সদর দপ্তরে। পরিসংখ্যান কর্মকর্তা হিসেবে আপনি আদমশুমারি ও গৃহগণনা কার্যক্রম, কৃষিশুমারি, অর্থনৈতিকশুমারি, মাসিক ভোক্তা সূচক (CPI) তথ্য সংগ্রহ, সেম্পল ভাইটাল রেজিস্টেশন সিস্টেম, ফসলাধীন জমির পরিমান ও ভূমির ব্যবহার সংক্রান্ত পরিসংখ্যান প্রস্তুত, বিভিন্ন ফসলের ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপণ, কৃষি মূল্য মুজরী তথ্য সংগ্রহ, বন জরিপ, গবাদি পশু ও হাস-মুরগী জরিপ, মাছ উৎপাদন জরিপ ইত্যাদি কাজের নেতৃত্বে থাকেন এবং জনগণকে পরিসংখ্যান তথ্য সংক্রান্ত সেবা দিবেন। পদোন্নতি ভালো। কাজের চাপ কম। ছুটি পাবেন। দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ আছে।

পদক্রম

পরিসংখ্যান কর্মকর্তা > উপ-পরিচালক > যুগ্ম-পরিচালক > পরিচালক

সড়ক ও জনপথ ক্যাডার

বিসিএস সড়ক ও জনপথ ক্যাডারে চাকরি হলে আপনাকে সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে যোগদান করবেন। পদায়ন হবে জেলা পর্যায়ে বিভাগীয় প্রকৌশলী কিংবা তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কিংবা অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর কার্যালয়ে। দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ আছে। বিভাগীয় প্রশিক্ষণ হয় মিরপুরের সড়ক ও জনপথ বিভাগ ট্রেনিং সেন্টারে। পদোন্নতি মোটামুটি। ছুটি মোটামুটি। লজিস্টিক সুবিধা আছে। প্রকৌশল গ্রাজুয়েটদের কাছে লোভনীয় এই চাকরি।

পদক্রম

সহকারী প্রকৌশলী > উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী > বিভাগীয় প্রকৌশলী > তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী > অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী > প্রধান প্রকৌশলী।

গণপূর্ত ক্যাডার

বিসিএস গণপূর্ত ক্যাডারে চাকরি হলে আপনি সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে গণপূর্ত বিভাগে যোগদান করবেন। সেখান থেকে পদায়ন হয় সাধারণত জেলা পর্যায়ে বিভাগীয় প্রকৌশলীর কার্যালয়ে। সরকারি ভবন নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ, ভবন নির্মাণে ব্যবহৃত সামগ্রীর মান যাচাই, ভবনের অবস্থা সম্পর্কে প্রতিবেদন তৈরির কাজ করতে হয়। পদোন্নতি ভালো। উচ্চপদে কর্মকর্তা সংকটের কারণে ২/৩ বছরের মধ্যেই উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করার সুযোগ আছে। তখন বাড়ি ও গাড়ি সুবিধা পাবেন। তবে ছুটি কম। মাঝে মাঝেই বন্ধের দিনও অফিস করা লাগে। টেস্টিং ল্যাবসহ দেশে ও বিদেশে অসংখ্য প্রশিক্ষণের সুযোগ আছে। বিভাগীয় প্রশিক্ষণ হয় গণপূর্ত প্রশিক্ষণ একাডেমীতে।

পদক্রম

সহকারী প্রকৌশলী > উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী > নির্বাহী প্রকৌশলী > তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী > অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী > প্রধান প্রকৌশলী।

লিখেছেনঃসৈকত তালুকদার বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে কর্মরত

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on telegram
Telegram
Share on email
Email
Share on twitter
Twitter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Posts

Latest Jobs

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় !

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় ! ইসমাইল হোসেন সিরাজীর উপন্যাস মনে রাখার সহজ উপায়: রানুর ফিতা ১। রা – রায় নন্দিনী ২।

Read More »

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে ৭১ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে মোট ৯ টি পদে ৭১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদন শুরু-২৯ ডিসেম্বর

Read More »

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে ৩৮ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। আবেদন শুরু-১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০ টা থেকে। আবেদন শেষ- ৪ জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫ টা। আবেদন করতে

Read More »

শক্তির উৎস

শক্তির উৎস শক্তির প্রধান উৎস (prime sources of energy) সূর্যই প্রায় সকল শক্তির উৎস । এছাড়াও পরমাণুর অভ্যন্তরে নিউক্লিয়াসের নিউক্লিয় শক্তি ও  পৃথিবীর অভ্যন্তরে অবস্থিত উত্তপ্ত গলিত

Read More »

বিশ্বসভ্যতা (A 2 Z)। ২০০ MCQ

বিশ্বসভ্যতা পৃথিবী এ পর্যন্ত পাড়ি দিয়েছে চারটি বরফ যুগ ও চারটি আন্তঃবরফ যুগ। প্রতি যুগেই উষ্ণ অঞ্চলে গিয়ে টিকে থাকা প্রাণীদের দেহের আকৃতিতে কিছু পরিবর্তন

Read More »

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় !

সকল কবি সাহিত্যিক লেখকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখার উপায় ! ইসমাইল হোসেন সিরাজীর উপন্যাস মনে রাখার সহজ উপায়: রানুর ফিতা ১। রা – রায় নন্দিনী ২।

Read More »

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে ৭১ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। সিলেট কর কমিশনারের কার্যালয়ে মোট ৯ টি পদে ৭১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদন শুরু-২৯ ডিসেম্বর

Read More »

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে ৩৮ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত। আবেদন শুরু-১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০ টা থেকে। আবেদন শেষ- ৪ জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫ টা। আবেদন করতে

Read More »

শক্তির উৎস

শক্তির উৎস শক্তির প্রধান উৎস (prime sources of energy) সূর্যই প্রায় সকল শক্তির উৎস । এছাড়াও পরমাণুর অভ্যন্তরে নিউক্লিয়াসের নিউক্লিয় শক্তি ও  পৃথিবীর অভ্যন্তরে অবস্থিত উত্তপ্ত গলিত

Read More »

বিশ্বসভ্যতা (A 2 Z)। ২০০ MCQ

বিশ্বসভ্যতা পৃথিবী এ পর্যন্ত পাড়ি দিয়েছে চারটি বরফ যুগ ও চারটি আন্তঃবরফ যুগ। প্রতি যুগেই উষ্ণ অঞ্চলে গিয়ে টিকে থাকা প্রাণীদের দেহের আকৃতিতে কিছু পরিবর্তন

Read More »